অবশেষে চাঁদের মাটিতে খুঁজে পাওয়া গেল ল্যান্ডার বিক্রমকে

119

ওয়াশিংটন: অবশেষে চাঁদের মাটিতে খুঁজে পাওয়া গেল ল্যান্ডার বিক্রমকে। চন্দ্রপৃষ্ঠে চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডার বিক্রমের ধ্বংসাবশেষ খুঁজে বের করল মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা।

এদিন সংস্থার তরফ থেকে একটি ট্যুইট করে জানানো হয়, নাসার উপগ্রহের ক্যামেরায় ধরা পড়ছে বিক্রমের ধ্বংসাবশেষের ছবি। নাসার প্রকাশ করা ছবিতে নীল ও সবুজ রঙ দিয়ে বিক্রমের ধ্বংসাবশেষকে চিহ্নিত করা হয়েছে।

সংস্থা সূত্রে খবর, নীল রঙ দিয়ে বিক্রমের ধ্বংসাবশেষ চিহ্নিত করা হয়েছে। অন্যদিকে, সবুজ রঙ দিয়ে বোঝানো হয়েছে বিক্রমের ভেঙে পড়া টুকরোর ধাক্কায় চাঁদের মাটি কতটা সরে গিয়েছে তা-

উল্লেখ্য, গত ২৬ সেপ্টেম্বর চাঁদের বুকে বিক্রমের ভেঙে পড়ার জায়গাটির ছবি প্রকাশ করেছিল নাসা। সেই ছবি থেকে একটি অংশকে বিক্রমের ধ্বংসাবশেষ বলে দাবি করেন ভারতীয় কম্পিউটার প্রোগ্রামার ও পেশায় মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার সম্মুগা সুব্রহ্মণ্যম। নাসার সর্বশেষ প্রকাশিত ছবিতে সেই জায়গাটিকে ‘S’ বলে চিহ্নিত করা হয়েছে।

নাসার পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, সুব্রহ্মণ্যম প্রথম এলআরও ক্যামেরায় তোলা ছবি থেকে বিক্রমের ধ্বংসাবশেষ চিহ্নিত করেন। যদিও পরে সেটিকে ঠিক বলে মনে করেন নাসার বিজ্ঞানীরা।

গত ১৪ অক্টোবর বিক্রমের ল্যান্ডিং সাইটের ছবি তোলার চেষ্টা করে নাসা। কিন্তু সাম্প্রতিক সেই ছবিতেও বিক্রমের কোনও হদিশ পাওয়া যায়নি। নাসার বিজ্ঞানীদের ধারণা ছিল, চাঁদের কোনও অন্ধকার অংশে লুকিয়ে আছে ভারত প্রেরিত চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডার বিক্রম। সেই জন্যই বিক্রমের অবতরণের কোনও ছবি ধরা পড়ছে না অথবা নাসার ছবি তোলার রেঞ্জের বাইরে অবস্থান করেছে বিক্রম।

বস্তুত, গত ৭ সেপ্টেম্বর বিক্রমের সঙ্গে ভারতীয় মহাকাশ কেন্দ্র (ইসরো) যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। বিজ্ঞানীদের ধারণা, চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে অবতরণ করার আগেই মহাশূন্যে হারিয়ে যায় ল্যান্ডার বিক্রম। অনেক চেষ্টার পরেও যোগাযোগ ব্যর্থ হয়। এরপর নাসা তাদের এলআরও-কে ১৭ সেপ্টেম্বর বিক্রমের ল্যান্ডিং সাইট পরিদর্শনে পাঠায়। কিন্তু তাতেও খোঁজ মেলে না চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডারের। দ্বিতীয়বার ঘটল একই ঘটনা।নাসার বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে অন্ধকার থাকার জন্য খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বিক্রমকে। অন্যদিকে, চাঁদের অই অংশ অত্যন্ত শীতল এবং অন্ধকারাচ্ছন্ন। এই পরিস্থিতিতে বিক্রমের কলকব্জাগুলি বিকল হয়ে পড়তে পারে। এরফলেই সম্পূর্ণভাবে অকেজো হয়ে চাঁদের মাটিতে কথাও পড়ে থাকতে পারে বিক্রম। অবশেষে প্রকাশ্যে এল সেই ধ্বংসাবশেষের ছবি।


LEAVE A REPLY

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে